চিকুনগুনিয়া রিসার্চ স্টাডিতে অংশগ্রহণ

আপনার অথবা নিকটজনের চিকুনগুনিয়া হয়ে থাকলে আমাদের স্টাডিতে অংশ নিতে আহবান জানাচ্ছি। এখন শুধু আগ্রহীদের তালিকা করছি। পরবর্তীতে রিসার্চ প্রটোকল অনুযায়ি নির্বাচিত হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে। সার্ভে ফরমটি এই পাতার নীচে দেয়া আছে।

বাংলাদেশে সম্প্রতি চিকুনগুনিয়া (Chikungunya) রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এটি ডেঙ্গি (Dengue) রোগের মতো একই রকম লক্ষণ প্রকাশ করলেও আক্রান্ত রোগীর উপর এর প্রভাব আলাদা এবং ক্ষেত্রেবিশেষে ভয়াবহ।

বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের উপর গবেষণার উদ্যোগ নিয়েছে। বেশ কয়েকটি লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে একাধিক প্রকল্প তৈরীর কাজ চলছে। এতে অংশ নিচ্ছে দেশে এবং বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশী ডাক্তার এবং পাবলিক হেলথ গবেষকবৃন্দ। এই উদ্যোগে আপনাদের অংশগ্রহণের আহবান জানাচ্ছি।

চিকুন গুনিয়া

ছবির স্বত্ব: নোভা ট্রাভেল ক্লিনিক

কীভাবে গবেষণা করা হবে

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্ট সায়েন্টিফিক্যালি এস্টাব্লিস্ট করতে প্রথমে প্রমাণ করতে হবে আসলেই আমাদের চিকুনগুনিয়া হয়েছিল। শুধুমাত্র ক্লিনিক্যাল লক্ষণের উপর ভিত্তি করে তা বলা যাবে না। এজন্য ল্যাব ডায়াগনোসিস এর মাধ্যমে প্রমাণিত এবং নিশ্চিত কেইস (রোগী) প্রয়োজন। সে সমস্ত নিশ্চিত কেইস হবে ক্লিনিক্যাল কেইসের ভিত্তি!

সমস্যা হচ্ছে চিকুনগুনিয়া বা অন্যান্য ভাইরাল জ্বরের জন্য সাধারণত চিকিৎসকরা মেডিকেল টেস্ট দেন না। ইমিউনোলজিক্যাল পজিটিভ কেইস পেতে প্রায় ৭ দিন অপেক্ষা করতে হয়ে। এর মধ্যেই সাধারণত জ্বর ভাল হয়ে যায়। তাই সাধারণত ভাইরাল জ্বরের ক্ষেত্রে ল্যাব টেস্ট তেমন বেনিফিট দেয় না। সাধারণত রোগীর অবস্থা খারাপ হলে টেস্ট রেকমেন্ড করা হয়।

মলিকিউলার টেস্ট লক্ষণ প্রকাশের ৩-৪ দিনের মধ্যেই করতে হয়। এটি খুব দামী টেস্ট। দেশে এই সেক্টর তেমন ডেভলপ করেনি। ভাল খবর হচ্ছে বেশ কয়েকজন রোগীর ইমিউনোলজিক্যাল টেস্ট রিপোর্টে চিকুনগুনিয়া পজিটিভ পাওয়া গেছে যার সাথে পরিচিত অনেকের যাদের এই রোগ হয়েছিল তাদের ক্লিনিক্যাল লক্ষণগুলো হুবহু মিলে যায়!

বেশকিছু পজিটিভ কেইস পেলে আমাদের স্টাডির সায়েন্টিফিক বেসিস দাঁড়িয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। আপনাদের সার্কেলে ব্লাড টেস্ট পজিটিভওয়ালা কেউ জানা থাকলে আমাদের কাইন্ডলি জানাবেন। আপনার দেয়া তথ্য সায়েন্টিফিক স্টাডি দাঁড় করাতে ভূমিকা রাখতে পারে।

চিকুনগুনিয়া জ্বরে ভোগা এমন কিছু রোগির কেইস আমাদের রিসার্চে প্রয়োজন যারা ব্লাড (ইমিউনোলজিক্যাল) বা PCR টেস্টের মাধ্যমে পজিটিভ প্রমাণিত হয়েছেন। কেউ এ বিষয়ে জেনে থাকলে আমাদের জানাবেন প্লিজ।

এযাবত অগ্রগতি

প্রজেক্ট নিয়ে আশাতীত অগ্রগতি হয়েছে। ক্লিনিক্যাল টিম প্রায় চুড়ান্ত করা হয়েছে। আরো কয়েকজন অত্যন্ত আগ্রহী ক্লিনিসিয়ানদের জড়িত হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

রিসার্চ এসিস্টেন্ট (Research Assistant) পজিশনে এ পর্যন্ত ভাল সাড়া পেয়েছি। যারা সিভি পাঠাতে চান তারা অতিসত্ত্বর পাঠিয়ে দেন এই ঠিকানায় sorowar2002@gmail.com. আমরা তাড়াতাড়ি টিম ফাইনাল করে কাজে নেমে পড়তে চেষ্টা করছি। বেশী দেরী হলে এই প্রজেক্টের গুরুত্ব কমে যাবে।

ভুক্তভোগীর অভিজ্ঞতা ও প্রত্যাশা

আমি নিজেই 1 চিকুনগুনিয়ার রোগী। প্রায় তিন সপ্তাহ হয়ে গেল এখনো নরমাল লাইফ লীড করতে পারছি না। ব্যথা মাঝে মাঝে ফিরে আসেে। হাঁটার সময় নিজেকে হালকা ফিল করি। ইকো-কার্ডিওগ্রাম করিয়েছিলাম। হার্ট নরমাল রয়েছে। আমার মেয়েরও হয়েছিল এবং ভাল হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তারও মাঝে মাঝে ব্যথা ফিরে আসছে। চিকুনগুনিয়া অন্য ধরনের অসুখ। এতে রোগী মারা যাওয়ার সম্ভাবনা না থাকার কারণে অনেকেই আমলে নিচ্ছেন না। আক্রান্ত রোগীর কোয়ালিটি অব লাইফসহ প্রডাক্টিভিটি কমে যায়। অনেকের কাছে শুনেছি তারা প্রায় দু’মাস যাবত ভুগছেন। অনেকে হয়ত কয়েক বছর ব্যাপী ভুগবেন।

আমরা চাই আগামীবার দেশে চিকুনগুনিয়া কট্রোলে থাকুক। এ উদ্দেশ্যেই আমরা চিকুনগুনিয়া নিয়ে স্বেচ্ছাসেবামূলক রিসার্চ প্রজেক্ট প্রায় দাঁড় করিয়ে ফেলেছি। আপনারা রোগী হিসেবে আমাদের প্রজেক্টে স্টাডি জড়িত হয়ে বাংলাদেশকে সার্ভ করতে এগিয়ে আসুন। কিছুদিনের মধ্যে আমরা স্টাডির জন্য কেইস এনরোল শুরু করব। আপনারা পরিচিত সার্কেলে লিস্ট করতে থাকুন যাতে রিসার্চ প্রজেক্টে জড়িত হয়ে নিজেরা উপকৃত হতে পারেন।

আমাদের ক্লিনিসিয়ান টিম চিকুনগুনিয়া পরবর্তী অবস্থা ম্যানেজ করতে প্রায় ৬ মাস ব্যাপী ফ্রি পরামর্শ দিবেন। আমাদের চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টে চোখ রাখুন। আপনাদের সার্কেলে তা ছড়িয়ে দিন।

স্টাডিতে অংশ নিন

দেশের স্বার্থে চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের জন্য এগিয়ে আসুন।

আপনি এই বছর চিকেনগুনিয়ায় আক্রন্ত হয়ে থাকলে আমাদের স্টাডিতে অংশ গ্রহণের আহবান জানাচ্ছি। আমাদের গবেষকদের নির্ধারিত ক্রাইটেরিয়া পূরণ হলেই কেবল আপনাকে নেয়া হবে। পুরো গবেষণাটি রিসার্চ এথিক্স অনুসরণ করে পূর্বনির্ধারিত প্রটোকল অনুযায়ি পরিচালিত হবে। আপনার দেয়া ডেটা কেবলমাত্র গবেষণার কাজে ব্যবহৃত হবে এবং গবেষণার সাথে সরাসরি জড়িত ব্যক্তিরাই কেবল এই ডেটা নিয়ে কাজ করবে।

আপনি অংশ নিতে চাইলে এখন এই ফরমটি পুরণ করে আগ্রহ প্রকাশ করুন। শীঘ্রই আমরা আপনার সাথে যোগাযোগ করব।

আমাদের সাথে যোগাযোগ

আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিয়ে আমাদের আপডেট পেতে পারেন।

এই ফরমটি পরিচিত কারো কাছে পাঠাতে চাইলে এই লিংকটি পাঠান। অথবা এই পোস্টটি শেয়ার করতে পারেন।


  1. ড. মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেন ^
Next
Previous
comments powered by Disqus